বিবিধসারাবাংলা

শরনখোলায় কলেজ অধ্যক্ষকে ফাঁসাতে নানা ষড়যন্ত্র

শাহিন হাওলাদার, বিশেষ প্রতিনিধি

বরখাস্ত কৃত অধ্যক্ষের দুর্নীতি ফাঁস হওয়া সহ কলেজের অফিস সহ কারীর অবৈধ আয়ের উৎস বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারনে বাগেরহাটের শরনখোলার মাতৃভাষা ডিগ্রী কলেজের বর্তমান অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে একটি কাল্পনিক অভিযোগ তুলে তাকে নানা ভাবে হয়রানির চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

২৪ জুলাই (শনিবার) দুপুরে শরনখোলা উপজেলা প্রেসক্লাবে উপজেলার মাতৃভাষা ডিগ্রী কলেজের (চলতি দ্ধায়িত্বে থাকা) অধ্যক্ষ মো. কামরুল ইসলাম মোল্লা আহতু এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ উত্থাপন করেন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন ,কলেজের রাষ্ট বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মো. ওয়ালিউর রহমান ২০০৭ সালে (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষের দ্ধায়িত্ব পান এবং দীর্ঘ ১৩ বছর পর দুর্নীতির অভিযোগে কলেজ কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি তাকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করেন। বিধি অনুযায়ী কলেজের সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক চন্দন কুমার কবুলাশীকে কলেজের (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষের দ্ধায়িত্ব নেওয়ার জন্য বলা হয়। কিন্তু তাতে তিনি অপরগতা প্রকাশ করেন।

তাছাড়া করোনা মহামারীর কারনে কলেজ পরিচালনা পরিষদের নিয়মিত সভা না হওয়ার কারনে বিধি মোতাবেক সভাপতির নির্দেশ ক্রমে আমাকে অধ্যক্ষের (চলতি দ্ধায়িত্ব) পালনের নির্দেশ দেয় কলেজ পরিচালনা পরিষদ । আমি দ্ধায়িত্ব পাওয়ার পর কলেজের অফিস সহকারী মো. রেজাউল ইসলাম নান্নুর কাছে ২০০৮ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ১১ বছরের কলেজের আয়-ব্যায়ের হিসাব চাইলে তিনি এতে নাখোশ হন ।

এবং বরখাস্তকৃত সাবেক অধ্যক্ষ মো. ওয়ালিউর রহমানের সাথে গোপন আতাত করে আমার বিরুদ্ধে দীর্ঘ ২১ বছর পুর্বে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাংচুরের নাটক সাজিয়ে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টায় মরিয়া হয়ে ওঠে একটি স্বার্থান্বেষী মহল। এছাড়া তাদের নেতৃত্বে ওই মহলটি আমাকে সহ আমার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করতে নানা ভাবে ষড়যন্ত চালিয়ে যাচ্ছে বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবী করেন ওই অধ্যক্ষ।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপাস্থিত ছিলেন,কলেজের সহকারী অধ্যাপক চন্দন কুমার কবুলাশী, প্রভাষক বিষয় পদ দাস, মো. মাহাফুজুর রহমান , মহামায়া মিত্র, মো. ফারুক হোসেন , মো. আবুল খায়ের ., মহানন্দ বালা , সঞ্জয় মৃর্ধা , কে এম ফিরোজ ও মো এনামুল কবির সহ আরো অনেকে।

Related Articles

Back to top button