অপরাধ ও দূর্ঘটনাআন্তর্জাতিকজাতীয়ধর্ম ও জীবনপ্রশাসনলিডসারাবাংলা

মহানবীর (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে উওাল গাজীপুর

মুসল্লিদের বিক্ষোভ মিছিল

এম এ হানিফ রানা

বিশ্ব নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে অপমানজনক কথাবার্তা ও কটুক্তি করার প্রতিবাদে, আজ শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর, গাজীপুর চান্দনা চৌরাস্তা ও গাজীপুর জয়দেবপুর কেন্দ্রীয় মসজিদ সহ বিভিন্ন মসজিদের মুসুল্লিরা, গাজীপুর শহরের বিভিন্ন স্থানে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। এছাড়াও শ্রীপুর, মাওনা চৌরাস্তা, কালিয়াকৈর সহ গাজীপুরের বিভিন্ন জায়গায় ধর্মপ্রাণ মুসলমানেরা বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। সমস্ত বিক্ষোভ মিছিলের মাঝেই মহানবী (সাঃ) নিয়ে কটুক্তি করায় ক্ষোভ প্রকাশ পায়। এই পরিস্থিতির জন্য দায়ী ভারতের দুই ব্যাক্তি। প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে অরুচিকর কথাবার্তা বলার কারনে আজ উওাল সমস্ত মুসলীম দেশগুলো।
ভারতের হিন্দু জাতীয়তাবাদী দল বিজেপির মুখপাত্র নূপুর শর্মা গত মাসে এক টেলিভিশন বিতর্কে এই মন্তব্য করেছিলেন। আর দলের দিল্লি শাখার মিডিয়া ইউনিটের প্রধান নভিন জিন্দাল এ বিষয়ে টুইটারে একটি পোস্ট দিয়েছিলেন।
তাদের মন্তব্য, বিশেষ করে নূপুর শর্মার কথা ভারতের সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়কে বেশ ক্ষুব্ধ করে। এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন জায়গায় বিচ্ছিন্নভাবে কিছু প্রতিবাদ বিক্ষোভও হয়েছে।নূপুর শর্মা ইসলামের নবী সম্পর্কে যে মন্তব্য করেন, তা বেশ আক্রমণাত্মক এবং অবমাননাকর, তাই বিবিসি এই মন্তব্য পুনরায় উল্লেখ করছে না।

বিজেপির এই দুই নেতা এরই মধ্যে প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়েছেন। অন্যদিকে বিজেপি মিজ শর্মাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে, আর মি. জিন্দালকে দল থেকেই বহিষ্কার করেছে।
ভারতে ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারের মুখপাত্র কর্তৃক মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স.) ও তার স্ত্রী হযরত আয়েশা (রা.) কে নিয়ে কটূক্তির প্রতিবাদে গাজীপুরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে সর্বস্তরের ইসলামপ্রিয় তৌহিদী জনতা।
ইতিমধ্যে ইসলামিক দেশগুলো কঠোর বার্তা দিয়েছে ভারতকে। তারা ইন্ডিয়ান সমস্ত পন্য ক্রয় বিক্রয় বন্ধ করে দিয়েছে। তাছাড়া ভারতীয়দের কাজ থেকে পাওনা পরিশোধ করে ভারতের টিকিটও হাতে ধরিয়ে দিচ্ছে।

বাংলাদেশ মুসলিম প্রধান দেশ তাই প্রিয় নবীকে অপমানের জ্বালায় জ্বলছে সমস্ত দেশ কয়েকদিন ধরে। আজ পবিত্র জুম্মা নামাজ শেষে ধর্মপ্রাণ মুসলমানেররা বিক্ষোভ মিছিল বের করেন এবং স্লোগানে স্লোগানে বাংলার আকাশ পাতাল কম্পিত করে তোলেন এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। যাতে ভবিষ্যতে প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে এমন মন্তব্য করার সাহস কেউ না পায়।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
error: Alert: Content selection is disabled!!